হবিগঞ্জে ডাকাতির ঘটনায় আটক ৫

Oct 6,2019 06:17am মফস্বল Editor

হবিগঞ্জ, ০৬ অক্টোবর : হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার মুড়াকরি ফুলবাড়িয়া গ্রামের মিলন মিয়ার স্ত্রী মাসুমা বেগমের বাড়িতে দুর্র্ধষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতির ঘটনার পরপরই হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ পাঁচ ডাকাতকে করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যমতে লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার করা হয়।

শনিবার রাতে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্যা। এ ব্যাপারে বাড়ীর মালিক মাসুমা বেগম লাখাই থানায় মামলা দায়ের করেন।

ডাকাতির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে চার ডাকাত। এর পুর্বে শনিবার ভোরে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হলেও বিষয়টি গোপন রাখে পুলিশ।

প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার বলেন, ডাকাতদের সহযোগিদেরও ছাড় দেয়া হবে না। অচিরেই তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হবে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন লাখাই উপজেলার স্বজন গ্রামের জাহের মিয়ার পুত্র ফরহাদ মিয়া (২০), একই গ্রামের নুরু মিয়ার পুত্র মামুন মিয়া (২২), আমির আলীর পুত্র মফিজুল ইসলাম (২০), সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার আব্দুল কাদেরের পুত্র জিতু মিয়া (৩১) ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর গ্রামের মোহর আলীর ছেলে সৈয়দ আলী (৪২)।

পুলিশ সুপার আরো জানান ডাকাতরা শুক্রবার রাতে লাখাই উপজেলার মুড়াকরি ফুলবাড়িয়া গ্রামের মিলন মিয়ার বাড়িতে ডাকাতি করে। খবর পেয়ে একদল পুলিশ উপজেলায় প্রবেশের সবগুলো সড়কে চেক পোস্ট বসান। এরপর হাওর এলাকাসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সাড়াশি অভিযান চালায় পুলিশ। পরে বি-বাড়ীয়ার নাছিরনগর উপজেলার আতুকুড়া ব্রিজের নিকট দিয়ে একটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে পালানোর সময় চেকপোস্টে তাদের আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা ডাকাতিক কথা স্বীকার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী ফুলবাড়িয়া হাওর থেকে একটি এলইডি টিভি, ডাকাতিতে ব্যবহৃত রামদা, রড, লোহার পাইপ, হাতুড়ি, বটি দা, ছুরিসহ অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

(সন্ধি নিউজ/প্রতিনিধি/ওএইচ)

Developed by e-Business Soft Solution