আমদানি তুলার জীবাণুমুক্ত করার খরচ কমানো হবে : কৃষিমন্ত্রী

Sep 6,2019 01:16am জাতীয় Editor

নিজস্ব প্রতিবেদক, ০৫ সেপ্টেম্বর : আমদানি তুলার জীবাণুমুক্ত করার খরচ কমানোর কথা জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেছেন, শিল্প-বাণিজ্যের স্বার্থে অর্থ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করেই খরচ কমানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। বৃহস্পতিবার কৃষি মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমএ) একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

 

বিটিএমএর সাবেক সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। প্রতিনিধি দলে অন্যদের মধ্যে ছিলেন বিটিএমএর সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও বিটিএমএর সাবেক সভাপতি তপন চৌধুরী. বিটিএমএর সাবেক সভাপতি এ মতিন চৌধুরী, বিটিএমএর সদস্য ও এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি এ. কে. আজাদ, কটন ইউএসএ'র কনসালট্যান্ট সাব্বির আহমেদ চৌধুরী এবং বিটিএমএর সেক্রেটারি জেনারেল ফিরোজ আহমেদ।

 

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সনৎ কুমার দাশ, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. আবদুল মুঈদ, তুলা উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী পরিচালক কৃষিবিদ ড. ফরিদ উদ্দিন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরিচালক কৃষিবিদ ড. আজহার আলী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

কৃষিমন্ত্রী আরো বলেন, তুলা আমদানির অনুমোদন কৃষি মন্ত্রণালয় দিয়ে থাকে। তবে তুলা আমদানির পর এর সঙ্গে কোনো রোগ-জীবাণু রয়েছে কি-না সেটার জন্য বন্দরে পরীক্ষা করতে হয়। এ জন্য সরকারকে আমদানিকারকদের একটা ফি দিতে হয়। সম্প্র্রতি ক্ষেত্রবিশেষে এ খরচ ১০ গুণ বাড়ানো হয়েছে। টাকার অংকে হয়তো ৫ থেকে ৫০ টাকা করা হয়েছে। তবে বিশ্বব্যাংকসহ যেসব সংস্থা সহজে ব্যবসা সূচক নির্ধারণ করে, তারা এটাকে খুব নেতিবাচকভাবে দেখছে।

 

তিনি বলেন, জীবাণুমুক্ত করার ফি প্রতি বেলে ১০ টাকা থেকে ৫০ টাকা করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে তুলা আমদানি করার সময় সেখানেই শুধু একবার পরীক্ষা করা হয়। আবার দেশে এনে পরীক্ষা করলে খরচ বাড়ে। ফলে যুক্তরাষ্ট্র সরকারও এটাকে ভালোভাবে নিচ্ছে না।

 

মন্ত্রী বলেন, তৈরি পোশাক শিল্পের প্রধান কাঁচামাল হচ্ছে কাপড়। এ কাপড় আগে আমদানি করা হতো। বর্তমানে টেপটাইল শিল্প বৃদ্ধি পাওয়ায় পুরো কাপড় দেশেই উৎপাদন হচ্ছে। তবে দেশে কাপড় তৈরির কাঁচামাল তুলার চাষ হয় না। তুলা আমদানি করতে হচ্ছে। আমদানি করার সময় তুলার সঙ্গে পোকামাকড় বা রোগ-জীবাণু আসছে কি-না সেটা দেখতে হয় কৃষি মন্ত্রণালয়কে।

 

বৈঠকে সালমান এফ রহমান বলেন, দেশের টেপটাইল মিলগুলো অনেক ভালো করছে। এক সময় কাপড় ছিল আমদানিনির্ভর। এখন দেশের চাহিদার সম্পূর্ণ কাপড় দেশেই তৈরি হচ্ছে। কাপড় তৈরির কাঁচামাল তুলা আমদানিতে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের তুলার ওপর পরীক্ষা পদ্ধতি পুনর্বিবেচনার অনুরোধ জানান তিনি। প্রতিনিধি দলের অন্য দাবির মধ্যে ছিল- আইপি আবেদনের সময় ও খরচ কমানো, জীবাণুমুক্ত করার ক্ষেত্রে আগের ফি বহাল রাখা এবং এসআরওর (স্পেশাল রিলিজ অর্ডার) ক্ষেত্রে আগের পদ্ধতি চালু করা। এর পরিপ্রেক্ষিতে কৃষিমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। এসআরও সমস্যা সমাধানের জন্য ঢাকা-চট্টগ্রামের অফিসগুলোকে অটোমেশান করা হবে বলে জানান কৃষিমন্ত্রী।

 

(সন্ধি নিউজ/এসপিএন/ওএইচ)

Developed by e-Business Soft Solution